ঢাকা, ||

বরিশালে দুই মিডিয়া কর্মির বিরুদ্ধে সড়যন্ত্র ॥ সাংবাদিক নেতাদের ক্ষোভ!



জাতীয়

প্রকাশিত: ৪:২৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৮

ষ্টাফ রিপোর্টার : বরিশালের উজিরপুর উপজেলার পশ্চিম জয়শ্রী গ্রামে আওয়ামী লীগের একটি নির্বাচনী ক্যাম্পে গভীর রাতে দুর্বৃত্তদের আগুন দেয়ার ঘটনায় থানায় দায়ের করা মামলার আসামী করা হলো এবার উজিরপুরের দুই সাংবাদিক শাকিল মাহমুদ বাচ্চু এবং মো. জহির খান।

এ ঘটনায় ওই এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় ও সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। উজিরপুরের এই দুই সাংবাদিককে আসামী করে মামলা দায়ের হওয়ায় উপজেলা আ’লীগের শীর্ষ নেতাদের মধ্যেও মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।এদিকে মিথ্যা মামলায় আসামি করায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন,বরিশাল সাংবাদিক সোসাইটি,এয়ারপোর্ট থানা প্রেসক্লাব,সম্মলিত সাংবাদিক পরিষদের নেতৃবৃন্দ । একইসাথে অতিদ্রুত মিথ্যা মামলা থেকে এই দুই সাংবাদিককে অব্যহতি না দিলে আন্দোলনে নামবেন বলে জানিয়েছেন বরিশাল সাংবাদিক সোসাইটির আহবায়ক মাসুদ রানা।

গত রোববার (২৩ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার পশ্চিম জয়শ্রী গ্রামে আ’লীগের নির্বাচনী ক্যাম্পে একদল দুর্বৃত্তরা অগ্নিসংযোগ করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার পরেরদিন গত ২৪ ডিসেম্বর ওই ওয়ার্ডের ছাত্রলীগের সভাপতি মনির হোসেন হাওলাদার বাদী হয়ে বিএনপি নেতা মশিউর রহমান হাওলাদারকে প্রধান অভিযুক্ত করে ৪২ জনের নাম উল্লেখ করে আরও ২৫ থেকে ৩০ জন অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে মামলা দায়ের করেন।

ওই মামলায় উজিরপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক ও আজকের পরিবর্তন পত্রিকার উজিরপুর প্রতিনিধি পূর্ব মুন্ডুপাশা গ্রামের বাসিন্দা শাকিল মাহমুদ বাচ্চুকে ৩১ নম্বর ও উজিরপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির যুগ্ম সম্পাদক বেসরকারী আনন্দ টেলিভিশন ও বরিশালের দৈনিক প্রথম সকাল পত্রিকার উজিরপুর উপজেলা প্রতিনিধি পৌর এলাকার বাসিন্দা মো. জহির খানকে ২০ নম্বর আসামি করা হয়।

কিন্তু বিষ্ময়কর বিষয় হচ্ছে- মামলার বাদী ছাত্রলীগ নেতা মনির হাওলাদার নিজেই জানেন না ওই রাতে কারা আওয়ামী লীগের অফিসে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে।

মনির হাওলাদার মুঠোফোনে জানিয়েছেন ২৩ ডিসেম্বর রাত ১২ পরে কে বা কারা আ’লীগের অফিসে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে তিনি তা চোখে দেখেননি। মামলায় দুই সাংবাদিকসহ ৪২ জনকে নামধারী আসামী করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি (মনির) স্থানীয় ইউপি সদস্য ইউসুফ হাওলাদারের সাথে যোগাযোগ করতে বলেন।

সাংবাদিক জহির খান অভিযোগ করে বলেন- তিনি গত ১৭ ডিসেম্বর বরিশাল থেকে প্রকাশিত দৈনিক বরিশালের প্রথম সকাল পত্রিকায় ও বরিশালটাইমস অনলাইন নিউজপোর্টালে “উজিরপুর ওসির অপসারণ দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ করার জের ধরে তাকে এই মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।

এমনকি মামলার বিষয়ে কিছুই জানেন না দাবি করে শিকারপুর ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম মাঝি বরিশালটাইমসকে বলেন- দুই সাংবাদিককে কি কারণে আসামী দেয়া হয়েছে তা তার বোধগম্য নয়। বিষয়টি আ’লীগের উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনা করা হবে।

উজিরপুর উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ সিকদার বাচ্চু ও পৌর মেয়র মো: গিয়াস উদ্দিন বেপারী সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করার ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করেন।

উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিশির কুমার পালজানিয়েছেন- বাদীর অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা হয়েছে। কে বা কারা আসামি পড়েছেন তা তার জানা নেই।