ঢাকা, ||

বারিশাল নৌ-বন্দর উন্নয়নে সিটি মার্কেট ভাঙ্গার নির্দেশ মন্ত্রীর ॥ সাদিক আব্দুল্লাহ নারাজ!!



অর্থনীতি

প্রকাশিত: ৪:১৬ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৭

বরিশাল পিপলস ডট কম : বরিশাল নৌ-বন্দর উন্নয়ন ও সৌন্দর্য্য বর্ধনে নৌ পরিবহণ মন্ত্রী শাজাহান খান এমপির সু-দৃষ্টি পড়েছে। বুধবার বরিশাল আগমনে নৌ-মন্ত্রী উলে¬খযোগ্য তিন সিদ্ধান্ত গহণ করেছেন। এর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা বিআইডব্লিউটিএ’র জমিতে মসজিদ নির্মাণ, বরিশাল সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক বহুমুখী সিটি মার্কেট নির্মাণ এবং মুক্তিযোদ্ধা পার্ক দখল নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নদী বন্দর কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) এর জমিতে মসজিদ (ডিসি ঘাট জামে মসজিদ) নির্মাণ নিয়ে মুসলি¬দের সাথে দ্বন্ধ চলে আসছিল। সে বিষয়ে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন নৌমন্ত্রী। মসজিদের নাম পরির্বতণ করে নদী বন্দর জামে মসজিদ নামকরণ করা হয়। পাশাপাশি মসজিদ কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। নতুন মসজিদ কমিটির সভাপতি হিসেবে পোর্ট অফিসারকে নির্বাচন করা হয়। এই কমিটিতে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের একজন করে প্রতিনিধি থাকবে। এছাড়া মুসল¬¬ীদের মধ্য থেকে সদস্য নিয়ে ১১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। মসজিদটি ভবিষ্যতে মাল্টিন্যাশনাল মসজিদ হিসেবে গড়ে তোলা হবে বলে নৌমন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন। বরিশাল সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক বিআইডব্লি¬উটিএ’র জমি দখল করে বহুমুখী সিটি মার্কেট অপসারণের ব্যাপারে বিসিসির সাথে শীঘ্রই সভায় বসবেন নৌমন্ত্রী। যদিও বহুমুখী সিটি মার্কেট অপসারণের ব্যাপারে বিসিসিকে ইত:পূর্বে নোটিশ প্রদান করা হয়েছিল।

বিস্বস্থ সূত্র নিশ্চিত করেছেন বরিশাল মহানগর আ’লীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক সাদিক আব্দুল্লাহ সিটি মার্কেট ব্যবসায়ীদের পক্ষ নেওয়ায় এ বিরোধের অবসান হচ্ছে না। যার দরুন আটকে আছে বরিশাল নৌ-বন্দর উন্নয়ন ও সৌন্দর্য্য বর্ধন। গত ১৯ অক্টোবর এক মতবিনিময় সভায় সিটি মার্কেট যাতে না ভাঙ্গতে পারে তার পক্ষে আছেন বলে মত প্রকাশ করেন। এ সময় তিনি বলেন, শুধুমাত্র বিআইডব্লিউটিএ’র (বন্দর কর্মকর্তা) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, মুক্তিযোদ্ধা পার্ক দেখভাল করার জন্য বিসিসিকে বলা হয়েছে। স্টল নির্মাণ করতে বলা হয়নি। তাই নদী বন্দর জামে মসজিদ, বহুমুখী সিটি মার্কেটের অপসারণ ও মুক্তিযোদ্ধা পার্ক দখলমুক্তের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।